সম্পাদকীয়

জানুয়ারী ১৩, ২০১৪, ২:১৮ অপরাহ্ন

নতুন মন্ত্রীসভা কি দ্রুত একটি মসৃন পথ তৈরী করতে পারবে!

নিউজ পেজ ডেস্ক

নানা বিতর্কের মধ্যেই নতুন সরকারের মন্ত্রীসভা গঠন হলো। মন্ত্রীসভায় যারা ঠাঁই পেয়েছেন তারা তুলনামুলকভাবে দক্ষ। অনেকেরই রাজনৈতিক অভিজ্ঞতা যেমন রয়েছে তেমনি পেশাদারী দক্ষতাও রয়েছে। আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় নবীন-প্রবীন মিলিয়ে একটা ভারসাম্যপূর্ণ মন্ত্রীসভা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গঠন করেছেন তা বলা যায়। যদিও এর মধ্যে কয়েকজনকে নিয়ে বিতর্ক রয়েছে।

বিতর্ক রয়েছে সরকারের ফরমেট নিয়ে। গণতন্ত্রের পাহারা দেয়ার মত কোন বিরোধী দল না থাকায় সংসদীয় গণতন্ত্রের ভারসাম্য নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। জাতীয় পার্টি একই সাথে সরকার এবং বিরোধী দলে থাকায় নতুন ধরনের সরকার গঠন হয়েছে। যার নজীর বিশ্বে বিরল।

নির্বাচনী প্রক্রিয়া নিয়েও বিরল দৃষ্টান্ত সৃষ্টি করলো বাংলাদেশ। একতরফা নির্বাচন নিয়ে বিতর্ক ছড়ালো সারা বিশ্বে। অথচ সংবিধানের তকমা দিয়ে নানা ধরনের সাংবিধানিক বিতর্ক তৈরী করা হলো। ভারত ছাড়া পূর্ব থেকে পশ্চিমের সব দেশই এ নির্বাচন নিয়ে উদ্বেগ জানিয়েছে। অবশ্য প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, জাতীয় বা আন্তর্জাতিক কোন চাপের কাছেই তিনি নত হবেন না।

নত হচ্ছে অর্থনীতি! গত কয়েক মাসে হরতাল, অবরোধসহ রাজনৈতিক অস্থিতিশীলতায় অর্থনীতির মেরুদন্ড ভেঙ্গে যাচ্ছে। রাজনীতির গতিপথ অনিশ্চিত থাকায় অর্থনীতির গতি স্থবির হওয়ার পথে।

প্রশ্ন হলো -নতুন মন্ত্রীসভা কি দ্রুত একটি মসৃন পথ তৈরী করতে পারবে! একই সাথে রাজনীতি ও অর্থনীতিতে! এটাই তাদের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। তার চেয়েও বড় চ্যালেঞ্জ হলো জনগণের আস্থা ও বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করা। কারন গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে এ সরকার গঠন হয়নি।

তাই জনগণের ম্যান্ডেটে একটি গণতান্ত্রিক সরকার গঠন করাই এ সরকারের প্রধান কাজ হওয়া উচিত। এজন্য বিএনপিসহ নির্বাচন বর্জন করা দলগুলোর সাথে এখনই সংলাপের উদ্যোগ নেয়া উচিত। পাশাপাশি প্রতিপক্ষকেও সহিংসতার পথ পরিহার করে গনতন্ত্রকে সুপ্রতিষ্ঠিত করতে বিচক্ষন রাজনৈতিক কৌশল নির্ধারন করা উচিত।

আশা করি নতুন সরকারের বিচক্ষন মন্ত্রীরা দেশ ও জনগণের স্বার্থকে অগ্রাধিকার দিয়ে রাজনীতি ও অর্থনীতির একটি মসৃন গতিপথ তৈরীতে দৃষ্টান্তমূলক ভূমিকা রাখবেন।

নিউজ পেজ২৪/একস