এপ্রিল ৫, ২০১৫, ১:২৪ অপরাহ্ন

শ্বশুর-শাশুড়ির চায়ে প্রস্রাব করতেন ছেলের বৌ

নিজস্ব প্রতিবেদক

একবছর ধরে শ্বশুর-শাশুড়িকে চায়ের সঙ্গে প্রস্রাব মিশিয়ে খাওয়ানোর পর শাশুড়ির কাছে হাতেনাতে ধরা পড়েছেন ভারতের মধ্য প্রদেশের ইন্দোর জেলার এক গৃহবধূ। ওই গৃহবধূর শ্বশুর-শাশুড়ি তার স্বামীকে ঘরের কাজ করতে বাধা দেয়ার প্রতিশোধ নিতে এই কাজ করছিলেন তিনি।

রেখা নাগবংশি নামের এই নারীর দাবি, বাবা-মায়ের পছন্দে বিয়ে করে তিনি সুখী ছিলেন না। এছাড়া শ্বশুড়বাড়িতে তার সঙ্গে খারাপ আচরণ করা হতো বলেও অভিযোগ তার।

রেখার স্বামীর নাম দীপক।

রেখার শাশুড়ি বলেন, আমরা জানতাম সে আমাদের পছন্দ করে না কিন্তু সে যে এই কাজ করছিল তা আমাদের কল্পনাতেও আসেনি। ও সবসময় আমাদের হাসিমুখে চা খাওয়ার জন্য বলতো।

কিন্তু একদিন আমি রান্নাঘরে গিয়ে রেখাকে চায়ের পটে প্রস্রাব করতে দেখি।

দাম্পত্য জীবনে রেখা অসুখী ছিলেন বিষয়টি তার বন্ধু আলিয়া কোহলির ভাষ্যেও পাওয়া গেছে। আলিয়া বলেন, ‘বাবা-মায়ের পছন্দের এই বিয়েতে রেখা মোটেও সুখী ছিল না। ও বলতো, দীপক নাকি তার সঙ্গে চাকরের মতো আচরণ করে।’

নানা বিষয়ে অশান্তির জের ধরে রেখা একবার তার স্বামীকে ছেড়ে বাবার বাড়িও চলে গিয়েছিলেন। এরপর দীপক তাকে ফিরে আসার জন্য অনুরোধ করলে রেখা তাকে শর্ত দেন- দীপক যদি ঘরের সব কাজ করতে রাজি হন শুধুমাত্র তবেই তিনি ফিরে যাবেন। রেখার দেয়া এই শর্তে দীপক রাজি হলে রেখা স্বামীর সঙ্গে বাড়ি ফেরেন।

রেখা-দীপকের চার বছরের একটি মেয়েও রয়েছে।

রেখার শ্বশুর সুরাজ বলছেন, ‘একটা মানুষ একবছর ধরে কাউকে চায়ের সঙ্গে প্রস্রাব মিশিয়ে খাওয়ানোর পর পার পেয়ে যাবেন, এটা হতে পারে না। আমরা এর বিচার চাই।’

নিউজ পেজ২৪/ইএইচএম