সাক্ষাৎকার

জুন ১৮, ২০১৫, ১:৫১ অপরাহ্ন

প্রকাশ্য সমালোচনা দল ছেড়েই করা উচিত

নিউজ পেজ ডেস্ক

সাবেক প্রতিমন্ত্রী ও বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান বলেছেন, দলীয় ফোরামই দলের সমালোচনার জায়গা। দলের দুর্বলতা, সমস্যা, করণীয় সবকিছু নিয়ে দলীয় ফোরামেই আলোচনা করতে হবে। তা না হলে দল শক্তিশালী হবে না।

তিনি বলেন, দলের বাইরে গিয়ে সমালোচনা করার কোনো সুযোগ নেই। যারা পাবলিকলি বা দলীয় ফোরামের বাইরে গিয়ে সমালোচনা করেন তারা দলকে ক্ষতিগ্রস্ত করেন। এতে দলীয় নেতাকর্মীদের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝির সুযোগ থাকে। প্রকাশ্য সমালোচনা করতে হলে দল ছেড়েই করা উচিত।

শনিবার বেলা সাড়ে ১১টায় মুঠোফোন সাক্ষাৎকারে ঢাকাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে এসব কথা বলেন সেলিমা রহমান। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন মহিউদ্দিন মাহী।

প্রশ্ন: বেশ কিছু দিন আপনাকে রাজনৈতিক মাঠে দেখা যাচ্ছে না। কেন?

সেলিমা রহমান: আমি অসুস্থ। পায়ের একটি ভেঙে গেছে। ব্যান্ডেজ করা আছে পা। এ কারণে বাসা থেকে বের হচ্ছি। না।

ঢাকাটাইমস: এভাবে কতদিন থাকতে হবে?

সেলিমা রহমান: চিকিৎসক বলেছেন আরও সপ্তাহ দুই।

প্রশ্ন: সম্প্রতি ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বাংলাদেশ সফর করে গেলেন। আমরা কী পেলাম?

সেলিমা রহমান: ভারত আমাদের প্রতিবেশী রাষ্ট্র। এই দেশের সঙ্গে আমার অনেক স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয় রয়েছে। নরেন্দ্র মোদির সফরে বেশি কিছু চুক্তি ও সমঝোতা হয়েছে। এসব কিছুকে আমি ইতিবাচকভাবেই দেখছি। সীমান্ত চুক্তির বাস্তবায়ন হলো। আশা করছি তিস্তাও হবে।

প্রশ্ন: খালেদা-মোদির বৈঠক নিয়ে বলুন।

সেলিমা রহমান: বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া বাংলাদেশের তিনবারের প্রধানমন্ত্রী। তিনি বিরোধী দলীয় নেত্রী ছিলেন। তার সঙ্গে ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ কাঙ্ক্ষিতই ছিল। সরকার চেয়েছে খালেদা-মোদি বৈঠক না হউক। কিন্তু সরকারের চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে।

প্রশ্ন: এ বৈঠক নিয়ে অনিশ্চয়তা ছিল। তারপরেও বৈঠক হলো। বিএনপি শিবিরে এটা নিয়ে উচ্ছ্বাস কেমন?

সেলিমা রহমান: বিএনপির শিবিরে এ বৈঠক নিয়ে উচ্ছ্বাস আছে। কারণ সরকারের চেষ্টা ব্যর্থ হয়েছে। এটাকে নেতাকর্মীরা বিএনপির কূটনৈতিক সফলতা বলে মনে করে। এছাড়া ভারতের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্কের উন্নয়ন হবে। এসব কিছু নিয়ে বিএনপি নেতাকর্মীরা উচ্ছ্বসিতও বটে।

প্রশ্ন: খালেদা-মোদির একান্ত বৈঠক সম্পর্কে কিছু বলুন।

সেলিমা রহমান: বিএনপি চেয়ারপারসন ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির একান্ত বৈঠক নিয়ে কিছু বলার নেই। কারণ এ বৈঠক সম্পর্কে কেউ জানে না। এটা একান্তই দুজনের মধ্যকার বৈঠক। এ সম্পর্কে ম্যাডাম আমাদেরকেও কিছু বলেননি। তাই এ সম্পর্কে কোনো কিছু বলা মুশকিল।

প্রশ্ন: একান্ত বৈঠক নিয়ে ভারতের একটি প্রভাবশালী দৈনিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। সেখানে দশ ট্রাক অস্ত্র, কলকাতার বর্ধমান কাণ্ড, প্রণব মুখার্জির সফরকালে হরতাল- এসব বিষয় নিয়ে খালেদার কাছে জানতে চেয়েছে মোদি। এ সম্পর্কে আপনাদের মূল্যায়ন কী?

সেলিমা রহমান: খালেদা-মোদির একান্ত বৈঠক সম্পর্কে কেউ জানে না। আমরাও জানি না। তবে ওই পত্রিকা কীভাবে জেনেছে সেটা বলতে পারবো না। এসম্পর্কে যেহেতু কিছু জানি না। তাই মন্তব্য করাও ঠিক হবে না।

প্রশ্ন: এ বৈঠক নিয়ে খালেদা জিয়া কিছু বলছেন না কেন? আপনার কী মনে হয়।

সেলিমা রহমান: খালেদা জিয়া আমাদের দলীয় প্রধান। তিনি কেন বলছেন না সেটা তিনিই ভালো বুঝবেন। এ নিয়ে আমাদের কিছু বলার নেই।

প্রশ্ন: সম্প্রতি দলের দুইজন স্থায়ী কমিটির সদস্য প্রকাশ্যে দলের সমালোচনা করেছেন। এ বিষয়ে আপনি কী বলবেন?

সেলিমা রহমান: দলের সমালোচনা দলীয় ফোরামেই করা উচিত। কারণ দলীয় ফোরামে না বলে প্রকাশে জনসম্মুখে বললে তৃণমূল নেতাকর্মীদের মধ্যে ভুল বার্তা যাবে। তাই আমি মনে করি এটা ঠিক না।

প্রশ্ন: দলের সমালোচনা করা যাবে না। আপনি এটা বলতে চাইছেন?

সেলিমা রহমান: মোটেই না। আমি বলতে চাইছি দলের সমালোচনা অবশ্যই করতে হবে। সেটা দলীয় ফোরামে। কিন্তু বাইরে গিয়ে দলের সমালোচনা করতে হলে দল ছেড়েই করা উচিত।

প্রশ্ন: বিভিন্ন দিক থেকে জামায়াত ছাড়ার জন্য বলা হচ্ছে। এ নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন নতুন করে চাপে আছেন কিনা?

সেলিমা রহমান: জামায়াত ছাড়ার বিষয়ে বিএনপি চেয়ারপারসনের ওপর আগে থেকেই একটা চাপ ছিল। এটা নিয়ে বিভিন্ন সময় আলোচনা-সমালোচনা হয়েছে। এটা নিয়ে নতুন চাপের কিছু নেই। বিএনপি চেয়ারপারসনই এ বিষয়ে নীতি নির্ধারকদের নিয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন।

প্রশ্ন: রাজনৈতিক মহলে আলোচনা আছে- মোদির সঙ্গে খালেদার বৈঠক, জোটের শরিকদের সমালোচনামূলক বক্তব্য, দলপুনর্গঠন, অভ্যন্তরীণ বিশৃঙ্খলা ও রাজনৈতিক করণীয় নির্ধারণ নিয়ে খালেদা জিয়া প্রচণ্ড চাপে আছেন। এসব কিছু নিয়ে বলুন।

সেলিমা রহমান: রাজনীতিবিদদের নানা সময়ে নানামুখী চাপ মোকাবেলা করতে হয়। এটা নতুন কিছু নয়। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। তিনি একটি বৃহৎ দলের প্রধান। তাকে বিভিন্ন ইস্যুতে চিন্তা করতে হয়। এটা স্বাভাবিক বিষয় বলে আমার কাছে মনে হয়।

প্রশ্ন: সময় দেয়ার জন্য আপনাকে ধন্যবাদ।

সেলিমা রহমান: আপনাকেও ধন্যবাদ।