খোলা কলাম

অগাস্ট ৬, ২০১৫, ৪:৪৩ অপরাহ্ন

রবীন্দ্র প্রয়াণ দিবসের হিসাবে গড়মিল

হাবিবুর রহমান স্বপন,

২২ শ্রাবণ। কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মহাপ্রয়াণ দিবস। এটি কততম প্রয়াণ দিবস? হিসাব করলেই বিষয়টির সঠিক হিসাব মিলবে। ১৯৪১-এর ৭ আগস্ট দিবসটি ছিল বাংলায় ২২ শ্রাবণ। যেহেতু বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর জীবদ্দশায় বাংলা তারিখটিই জন্মদিবস হিসেবে পালন করতেন, তারই ধারাবাহিকতায় তাঁর প্রয়াণ দিবসটিও পালিত হয় বাংলা তারিখ মোতাবেক।

বিভিন্ন টেলিভিশন এবং সংবাদপত্রে এবারের (২০১৫) মৃত্যু দিবসটিকে ৭৪তম দিবস বলা বা লেখা হয়েছে। খবরটি দেখে বা পড়ে গণিতের হিসাব মেলাতে বসলাম। হিসাবে বার বার গড়মিল হচ্ছে। তাই এই লেখার অবতারণা।

প্রথমে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্ম তারিখ এবং বর্তমান বাংলা পঞ্জিকা অনুযায়ী ইংরেজি তারিখের সঙ্গে গড়মিল প্রসঙ্গে বলি। রবীন্দ্রনাথের জন্ম ১২৬৮ বঙ্গাব্দের ২৫ বৈশাখ। সেদিন ইংরেজি তারিখটি ছিল ১৮৬১ খ্রিস্টাব্দের ৭ মে। আবার মৃত্যু দিবসটি ছিল বাংলা ১৩৪৮ বঙ্গাব্দের ২২ শ্রাবণ। সেদিন ইংরেজি তারিখটি ছিল ১৯৪১-এর ৭ আগস্ট।

এখন হিসেব করলে কি দাঁড়াবে? ১৯৪১-এর ২২ শ্রাবণ প্রয়াণ দিবসটি কি মৃত্যু দিবস হিসেবে যোগ হবে না? ছোট ক্লাসে আমরা গণিত করতে গিয়ে বার বার এই ভুল করতাম। একটি পুকুরের চতুর্দিকে ৫ হাত পর পর কলা গাছ রোপণ করতে গিয়ে প্রথম কলাগাছটি যে রোপণ করা হলো সেটি হিসাব থেকে বাদ যেত। যে কারণে গণিত স্যার নাম্বার দিতেন গোল্লা বা শূণ্য।

প্রথমে ধরতে হবে প্রথম প্রয়াণ দিবসটিকে। তাহলে দেখা যাচ্ছে ১৯৪১ থেকে ২০০০ সাল ৬০ বছর। ২০১৫ পর্যন্ত ১৫ বছর। ৬০ এবং ১৫ যোগ করলে হয় ৭৫ বছর। সেই হিসেবে এ বছর রবীন্দ্রনাথের ৭৫তম প্রয়াণ দিবস। হ্যাঁ, যদি কেউ বলেন ৭৪তম প্রয়াণ বর্ষ, তা হলে সেটি সঠিক। বর্ষ এবং দিবসের হিসেব তো এক নয়। বর্ষ হলে তো প্রথম প্রয়াণ থেকে পরবর্তী বছরের প্রয়াণ দিবসে এক বছর বা একক হিসেবে ধরতে হবে। কিন্তু দিবস হিসেব করলে আপনাকে অবশ্যই প্রথম প্রয়াণ দিবসটিকে যোগ করতে হবে। এবার অর্থাৎ ১৪২২ বঙ্গাব্দের ২২ শ্রাবণ রবীন্দ্রনাথের ৭৪তম মৃত্যুবার্ষিকী এবং ৭৫তম মৃত্যু দিবস।

এবার আসি বাংলা এবং ইংরেজি তারিখের গড়মিল প্রসঙ্গে। ১৮৬১-এর ৭ মে বাংলা তারিখ ছিল ২৫ বৈশাখ (১২৬৮ বঙ্গাব্দ)। কিন্তু লক্ষ্য করুন এবার বা ২০১৫-এর ২৫ বৈশাখ ছিল ৮ মে। একইভাবে ১৯৪১-এর ৭ আগস্ট ছিল ২২ শ্রাবণ (১৩৪৮ বঙ্গাব্দ)। চলতি ২০১৫-এর ২২ শ্রাবণ ৬ আগস্ট।

এখন আমাদের বুঝতে হবে কেন এই ইংরেজি এবং বাংলা তারিখের গড়মিল। ভারতের বা পশ্চিম বঙ্গের বাংলা ক্যালেন্ডার মোতাবেক তারিখের গড়মিল নেই। দেখুন ওপার বাংলার বাংলা পঞ্জিকা অনুসারে ৭ আগস্টেই ২২ শ্রাবণ। আমাদের দেশের ক্যালেন্ডারে বাংলা তারিখের নতুন হিসেব বা পদ্ধতি হওয়ার পর থেকেই তারতম্য হচ্ছে। এ কারণে এপার বাংলা বা পূর্ববাংলায় যেদিন আমরা কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের জন্ম বা মৃত্যু দিবস পালন করি তার একদিন আগ-পিছ হয় ওপার বাংলায়। যদি কবিগুরুর জন্ম-মৃত্যু দিবস ইংরেজি তারিখ মোতাবেক পালিত হতো তা হলে এমনটি হতো না। কিন্তু তা তো হবার নয়। যেহেতু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর মনে-প্রাণে বাঙালি ছিলেন। শুধু তাই নয়, তিনি বাংলা ভাষা এবং বাঙালিকে বিশ্ব দরবারে মাথা উঁচু করার গৌরব দান করেছেন। অতএব তাঁর জন্ম-মৃত্যু দিবস বাংলা সন তারিখ অনুযায়ী হবে সেটাই তো স্বাভাবিক।

লেখক : সাংবাদিক, কলামিস্ট


নিউজ পেজ২৪/ইএইচএম