স্বাস্থ্য

সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৫, ৬:৫৭ অপরাহ্ন

লাইসেন্সবিহীন ওষুধের দোকান বন্ধে শিগগিরই অভিযান

নিজস্ব প্রতিবেদক

লাইসেন্সবিহীন ওষুধের দোকান বন্ধে অবিলম্বে অভিযান শুরু করার জন্য সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। রাজধানী ঢাকা থেকে এই অভিযান শুরু হবে এবং অভিযান শেষ না হওয়া পর্যন্ত নতুন লাইসেন্স না দিতেও নির্দেশ দেন তিনি।

সচিবালয়ে বৃহস্পতিবার 'ভেজাল ওষুধ প্রতিরোধে করণীয়' শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্বকালে তিনি এ নির্দেশ দেন। মতবিনিময় সভায় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়, মৎস্য ও পশুসম্পদ মন্ত্রণালয়, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়, ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ, বাংলাদেশ মেডিক্যাল অ্যাসোসিয়েশন, বাংলাদেশ ওষুধ শিল্প সমিতি, বাংলাদেশ ভেষজ চিকিৎসক সমিতির প্রতিনিধিগণ উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় মন্ত্রী সারা দেশে সরেজমিনে পরিদর্শন করে লাইসেন্সবিহীন দোকান চিহ্নিত করে দ্রুত প্রতিবেদন পেশ করতে ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরকে নির্দেশ প্রদান করেন।

ভেজাল, নকল বা অননুমোদিত ওষুধ বিক্রয় প্রতিরোধে আরও কঠোর হতে সংশ্লিষ্টদের আহ্বান জানিয়ে তিনি আরও বলেন, ''ভেজাল ওষুধ ও খাবার প্রতিরোধে সরকারের অভিযান অব্যাহত থাকবে। কোনোভাবেই এই অভিযান বন্ধ করা হবে না। এ ক্ষেত্রে আরও কঠোর পদক্ষেপ নিতে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সহায়তা চাই।''

জাতীয় ওষুধ নীতির সংশোধনে সরকারের উদ্যোগের কথা উল্লেখ করে নাসিম বলেন, ''নতুন ওষুধ নীতিতেও ভেজাল ও নকল ওষুধ বিপণনের বিরুদ্ধে কঠোর বিধান রাখা হবে।''

মন্ত্রী বলেন, ''দেশের বড় বড় বিখ্যাত হাসপাতাল ও দোকানে যদি ভেজাল ও অননুমোদিত ওষুধ পাওয়া যায়, তবে দেশবাসী কোথায় যাবে? দেশবাসীকে বাঁচাতে প্রকৃত ব্যবসায়ীদেরই সবার আগে এগিয়ে আসতে হবে।'' নকল ও ভেজাল ওষুধ প্রতিরোধে দোকানে চিকিৎসকদের প্রেসক্রিপশন ছাড়া জীবন রক্ষাকারী ওষুধ বিক্রয় বন্ধে জনমত সৃষ্টি করার ওপরও গুরুত্বারোপ করেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

বৈঠকে আরও উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্যসচিব সৈয়দ মঞ্জুরুল ইসলাম, ওষুধ প্রশাসন অধিদপ্তরের মহাপরিচালক মেজর জেনারেল মোস্তাফিজুর রহমান, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বিশ্ববিদ্যালয়েল উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. দীন মো. নুরুল হক, বাংলাদেশ ফার্মাসিউটিক্যাল ইমপোর্টারস অ্যাসোসিয়েশনের চেয়ারম্যান সুকুমার ঘোষ প্রমুখ।
নিউজ পেজ২৪/ইএইচএম