মিডিয়া

জানুয়ারী ১২, ২০১৬, ১০:২৭ পূর্বাহ্ন

কালের কণ্ঠের সম্পাদক, প্রকাশকের বিরুদ্ধে মানহানির মামলা

নিজস্ব প্রতিবেদক

কালের কণ্ঠের সম্পাদক, প্রকাশকসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে ৫ কোটি টাকার মানহানির মামলা হয়েছে।

সোমবার নোয়াখালীর চাটখিল পৌরসভার মেয়র মোস্তফা কামাল বাদী হয়ে নোয়াখালীর ৪ নম্বর আমলি আদালতে এ মামলা দায়ের করেন।

মামলার বিবাদীরা হলেন- কালের কণ্ঠের সম্পাদক ইমদাদুল হক মিলন, প্রকাশক ময়নাল হোসেন চৌধুরী, প্রতিবেদক হায়দার আলী, জেলা প্রতিনিধি সামসুল হাসান মীরন এবং আহসানুল হক মাসুদ। আহসানুল হক চাটখিল পৌর নির্বাচনে বিএনপির দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন।

আদালতের বিচারক জ্যৈষ্ঠ বিচারিক হাকিম সিরাজ উদ্দিন ইকবাল মামলা আমলে নিয়ে অভিযোগ তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য চাটখিল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে (ওসি) নির্দেশ দিয়েছেন।

সোমবার সন্ধ্যায় ওসি মো. নাছিম উদ্দিন গণমাধ্যমকে বলেন, এ বিষয়ে তিনি কিছু জানে না। থানায় এ সংক্রান্ত কোনো নির্দেশনা এসে পৌঁছায়নি।

বাদী মোস্তফা কামাল (বর্তমান মেয়র) এজাহারে অভিযোগ করেন, ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত পৌর নির্বাচনে তিনি বিএনপির দলীয় মনোনয়ন পেয়ে মেয়র পদে মনোনয়নপত্র দাখিল করেন। এরপর ক্ষমতাসীন দলের লোকজন নির্বাচন থেকে সরে দাঁড়ানোর জন্য তার ওপর চাপ সৃষ্টি করতে থাকে। যার ধারাবাহিকতায় গত ১৩ ডিসেম্বর সন্ধ্যা পৌনে ৬টায় একদল অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী তার কাছে থেকে জোরপূর্বক মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের জন্য স্বাক্ষর নিয়ে কথিত প্রত্যাহারপত্র রিটার্নিং কর্মকর্তার নিকট জমা দেন। পরে রিটার্নিং কর্মকর্তা তিনি (বাদী) প্রার্থিতা প্রত্যাহার করেছেন বলে ঘোষণা দেন।

কিন্তু পরবর্তীতে বিএনপি থেকে মনোনয়ন প্রত্যাশী আহসানুল হকের সহায়তায় গত ২৭ ডিসেম্বর কালের কণ্ঠ পত্রিকার শেষ পৃষ্ঠায় ‘কোটি টাকায় মেয়র পদ বিক্রি’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়। এতে তার ৫ কোটি টাকার মানহানি হয়েছে আরজিতে উল্লেখ করেন মোস্তফা কামাল।

এই আসনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আওয়ামী লীগ প্রার্থী মোহাম্মদ উল্লাহ পাটোয়ারি বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন।