অর্থনীতি

জুন ৩০, ২০১৬, ১০:৩৫ অপরাহ্ন

জাতীয় সংসদে ২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেট পাস

নিজস্ব প্রতিবেদক

জাতীয় সংসদে পাস হয়েছে ২০১৬-১৭ অর্থবছরের বাজেট। অর্থবিলে কিছু পরিবর্তন হলেও আগামী অর্থবছরে খরচের লক্ষ্য ৩,৪০,৬০৫ কোটি টাকাই বহাল থাকছে।

বৃহস্পতিবার বিকেলে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত নতুন অর্থ বছরের বাজেট পাসের প্রস্তাব করেন।

বাজেটের উপর ৫৫টি দাবির বিপক্ষে বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে মোট ৪২০টি ছাটাই প্রস্তাব আনা হয়। এতে বিরোধী দল জাতীয় পার্টির ৬ জন এবং স্বতন্ত্র সংসদ সদস্যদের ৩ জন আলোচনা করেন। মোট ৭টি মন্ত্রণালয়ের বরাদ্দ নিয়ে আলোচনা হয় বাকীগুলো সরাসরি ভোটে গৃহীত হয়।

এরআগে বেলা ১টা ৩২ মিনিটে স্পিকারের ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে বাজেট অধিবেশন শুরু হয়।

স্পিকার ও ডেপুটি স্পিকার অ্যাডভোকেট ফজলে রাব্বী মিয়ার যৌথ সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত অধিবেশনে ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের বাজেট পাস হয়। এসময় সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদ উপস্থিত ছিলেন।

এরআগে ২ জুন সংসদে ২০১৬-১৭ অর্থ বছরের বাজেট পেশ করেন অর্থমন্ত্রী। এরপর ৮ জুন থেকে প্রস্তাবিত বাজেটের সাধারণ আলোচনায় অনুষ্ঠিত হয়। এতে সংসদ নেতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিরোধী দলীয় নেতা বেগম রওশন এরশাদসহ অধিকাংশ সংসদ সদস্যরা পক্ষে বিপক্ষে নানা যুক্তিতর্ক উত্থাপন করেন।

এরপর ২৯ জুন সংসদে প্রধানমন্ত্রীর অনুরোধে রপ্তানি খাতে উৎস কর কমানো হয়। এর বাইরেও কয়েকটি বিষয়ে সংশোধনী আনা হয়।

এটি ছিলো অর্থমন্ত্রী আবুল মালু আবদুল মুহিতের দশম বাজেট এবং আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকারের ৮ম বাজেট। দেশের ইতিহাসে সর্ববৃহৎ বাজেটও এটি। এ বাজেট বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে দেশের আর্থ সামাজিক উন্নয়নের ধারাকে আরো এক ধাপ এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেছেন সরকার প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতসহ সরকারের নীতি নির্ধারক সংসদ সদস্যরা।

২০১৬-১৭ অর্থ বছরের পাস হওয়া বাজেটের আকার ৩,৪০,৬০৫ কোটি টাকা। এরমধ্যে রাজস্ব আয়ের লক্ষ্য ধরা হয়েছে ২,৪২,৭৫২ কোটি টাকা। এর মধ্যে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড নিয়ন্ত্রিত কর ব্যবস্থা থেকে আদায় করা হবে ২,৩,১৫২ কোটি টাকা।

এনবিআর বহির্ভূত কর আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৭,২৫০ কোটি টাকা এবং করবহির্ভূত রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয় ৩২,৩৫০ কোটি টাকা। বিদেশি অনুদান ধরা হয়েছে ৫,৫১৬ কোটি টাকা। এ অনুদান পাওয়া গেলে সরকারের মোট আয় হবে ২,৪৮,২৬৮ কোটি টাকা।

নতুন বাজেটে মোট অনুন্নয়ন ব্যয় ধরা হয়েছে ২,১৫,৭৪৪ কোটি টাকা। এরমধ্যে অনুন্নয়ন রাজস্ব ব্যয় হবে ১,৮৮,৯৬৬ কোটি টাকা। এ অনুন্নয়ন ব্যয়ের মধ্যে অভ্যন্তরীণ ঋণের সুদ ৩৮,২৪০ কোটি টাকা এবং বিদেশি ঋণের সুদ দেওয়া হবে ১,৭১১ কোটি টাকা। মূলধনী ব্যয় ২৬,৭৭৮ কোটি টাকা। ঋণ ও অগ্রীম বাবদ ব্যয় হবে ৮,৪২৮ কোটি টাকা।

এছাড়া উন্নয়ন ব্যয় করা হবে ১,১৭,২৭ কোটি টাকা। এর মধ্যে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) হচ্ছে ১,১০,৭০০ কোটি টাকা। এডিপি বাস্তবায়নে সরকারের অর্থায়ন ৭০,৭০০ কোটি টাকা এবং বৈদেশিক সহায়তা নেওয়া হবে ৪০ হাজার কোটি টাকা। এডিপি বহির্ভূত প্রকল্প ব্যয় হচ্ছে ৪,১৪৭ কোটি টাকা। কাজের বিনিময়ে খাদ্য কর্মসূচিতে ব্যয় হবে ১,৮২৬ কোটি টাকা।

জিডিপির ৫ শতাংশ ধরেই ঘাটতি বাজেট প্রণয়ন করা হয়েছে। আগামী বছরে ঘাটতি বাজেটের পরিমাণ হচ্ছে ৯৭,৮৫৩ কোটি টাকা (অনুদান ছাড়া)। তবে বিদেশি অনুদান পাওয়া গেলে ঘাটতি বাজেটের পরিমাণ দাঁড়াবে ৯২,৩৩৭ কোটি টাকা।

এ ঘাটতি মেটাতে অভ্যন্তরীণ ব্যাংক থেকে ঋণ নেওয়া হবে ৩৮,৯৩৮ কোটি টাকা। সঞ্চয়পত্র খাত থেকে নেওয়া হবে ১৯,৬১০ কোটি টাকা এবং অন্যান্য খাত থেকে নেওয়া হবে ৩ হাজার কোটি টাকা।

এছাড়া বৈদেশিক উৎসের মধ্যে বিদেশি ঋণের পরিমাণ ৩৮,৯৪৭ কোটি টাকা। তবে এর মধ্যে আগের নেয়া বিদেশি ঋণ পরিশোধের পরিমাণ হচ্ছে ৮,১১৫ কোটি টাকা।
নিউজপেজ/ইএইচএম