খোলা কলাম

জুলাই ১৭, ২০১৬, ৩:৫১ অপরাহ্ন

বিফল ক্যু পরবর্তী তুরস্কের সর্বশেষ হালচাল!

হাফিজুর রহমান, অতিথি লেখক

তুরস্ক থেকেঃ এক- পরশু সারারাত অনেক ঘটনার পর গতকাল সকাল থেকে শুরু হয় বিপথগামী সামরিক বাহিনীর আত্মসমর্পন ও গ্রেপ্তার।কিন্তু বিপথ পুরোপুরি কাটতে সময় লেগে যায় গতকাল সন্ধ্যা পর্যন্ত যখন সর্বশেষ গ্রুপ আত্মসমর্পন করে।কিন্তু গুজবে গুজবে গতরাত পার হয়েছে তার্কিশদের। মুখে মুখে ছিল প্ল্যাণ "বি" বাস্তবায়নের কথা। এমনকি পত্রিকাগুলোও এ নিয়ে নিউজ করে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছিল গুজবের ব্যপক বিস্তর।

প্ল্যাণ "বি" মানে হল নতুন ক্যু। অর্থাৎ প্রথম ক্যুতে ব্যর্থ হয়ে তারা দ্বিতীয় ক্যু করতে পারে এমন ধারনা।

দুই- সকল রাজনৈতিক দল একসঙ্গে বিকাল ৫ টায় সংসদে বসে। সংসদে প্রতিনিধিত্বকারী চার দলের প্রধানরা বক্তব্য রাখেন। যাতে সম্মিলিতভাবে সমস্যা কাটিয়ে উঠতে সকলে একই সুরে কথা বলেন। অধিবেশন শেষে সম্মিলিত প্রেসব্রিফিং এ প্রধানমন্ত্রী সম্মিলিতভাবে এ ঘটনা কাটিয়ে উঠার কথা বলেন।

তিন- প্রেসিডেন্ট রেপেজ তায়্যিপ এরদোয়ান ও প্রধানমন্ত্রী বিনালী ইলদিরিমের আহবানে রাজপথে অবস্থান করতে থাকে জনতা। গতকাল সারারাত কোটি জনতা রাজপথেই ছিল। এ অবস্থান পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত চলবে। প্রধানমন্ত্রীর আহবানে আনকারার খিজিলাই স্কয়ারে সমবেত হয় লাখো জনতা।

চার- ক্যুতে পরিকল্পনায় সহযোগীতা ও গুলেনের নিয়োগ করা প্রায় তিনহাজার বিচারক বরখাস্ত করা হয়। যারা সকলে গুলেনের মাধ্যমে নিয়োগপ্রাপ্ত ছিল। গ্রেপ্তার করা হয় দ্বিতীয় বিচারপতিকে (অাই মিনি প্রধান বিচারপতির পরেই যার স্থান)।

পাঁচ- বিদ্রোহী জেনারেলদেরকে নজরদারীতে আনা ও গ্রেফতার করা হচ্ছে। সর্বশেষ টিভির ব্রেকিং এ দেখে আসলাম, সামরিক বাহিনীর ৪২ জেনারেলের নাম প্রচার করা হচ্ছে যারা নজরধারীতে আছেন।

ছয়- রাজধানীর অনেক জায়গায় এখনো সিটি কর্পোরেশনের ট্রাক দিয়ে গলিগুলো বন্ধ করে রাখা হয়েছে। বোমা হামলায় কোথাও কোথাও পানির লাইন, বিদ্যুত লাইন ক্ষতিগ্রস্থ হযেছে যেগুলো এখনো মেরামত সম্বব হয়নি।

সাত- তার্কিশ লিরার বিপরীতে ডলার ও ইউরোর দাম বেড়েছে। অর্থনীতিতে ক্যুয়ের বড় ধরনের প্রভাব পড়বে।

আট- তুরস্কে দুপুর এখন বারটা আট মিনিট বাজে। মসজিদগুলো থেকে একযুগে বিশেষ আযান ও দোয়া প্রচারিত হচ্ছে। যা শহীদদের স্বরণে করা হচ্ছে। আজ শহীদদের জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

নয়- পরশু রাতের বিমান হামলায় সরকারী অনেক ভবনরে ব্যপক ক্ষতি হয়েছে। এরমধ্যে সংসদ ভবন, রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থার ভবন ও পুলিশের ভবন অন্যতম। সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে সংসদ ভবন। সেটা আধূনিক তুরস্কে প্রথমবারের মত ঘটনা।

দশ- এবারের ক্যু সফল হলে বিশাল ক্ষতি হত তুরস্কের এমনকি পুরো মুসলিম বিশ্বের। তুরস্কে গণতন্ত্র হয়তোবা অনেক বছরের জন্য হারিয়ে যেত।ইসলাম হয়তোবা নিশ্চিহ্ন হয়ে যেত। কিন্তু ক্যু ব্যর্থ হওয়ার অটোমেটিক এক বিপ্লব সংঘঠিত হয়ে গেছে। আর হে, এ বিপ্লব ইসলামের বিপ্লব, "তাকভীর-আল্লাহু আকবর", "ইয়া আল্লাহ, বিসমিল্লাহ, আল্লাহু আকবর" এর বিপ্লব। যেটা হয়তো এমনিতে অসম্বব ছিল। মানুষের মুখে মুখে এই তাকভীর ধ্বনি তুর্কিশরা সম্ববত বিগত অনেক বছরে দেখেনী।

লেখকঃ হাফিজুর রহমান, পিএইচডি গবেষক
গাজী বিশ্ববিদ্যালয়, আনকারা, তুরস্ক

নিউজপেজ২৪/ এএ