আন্তর্জাতিক

জুন ৭, ২০১৭, ১২:০২ অপরাহ্ন

কাতারকে বিচ্ছিন্ন করার কৃতিত্ব দাবি ট্রাম্পের

নিউজপেজ ডেস্ক

সন্ত্রাসের জোগানদাতা অভিযোগ করে কাতারকে উপসাগরীয় প্রতিবেশীদের কাছ থেকে কূটনৈতিকভাবে বিচ্ছিন্ন করার কৃতিত্ব নিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প।

গতকাল মঙ্গলবার সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম টুইটারে পোস্ট করা বার্তায় কাতারের বিচ্ছিন্নতার জন্য নিজের ভূমিকার কথা বলেন ট্রাম্প।

সন্ত্রাসী ও ইরানকে সমর্থন দেওয়ার অভিযোগে সোমবার কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক ও অন্যান্য সম্পর্ক ছিন্ন করে সৌদি আরব, বাহরাইন, সংযুক্ত আরব আমিরাত (ইউএই), ইয়েমেন, লিবিয়ার পূর্বাঞ্চলীয় সরকার ও মালদ্বীপ।
এর একদিন পর মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, সৌদি আরবে সাম্প্রতিক সফরে তিনি বলেছিলেন, কাতার ‘চরমপন্থী মতাদর্শ’গুলোর পৃষ্ঠপোষক। সফরের ফল পাওয়া শুরু হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

টুইট বার্তায় তিনি বলেন, সম্প্রতি মধ্যপ্রাচ্য সফরে আমি বলেছি, মৌলবাদী আদর্শে আর অর্থায়ন হতে পারে না। সেসময় নেতৃবৃন্দ কাতারের দিকে আঙ্গুল তুলে বলেছেন, তাদেরকে শিক্ষা নিতে বলেছেন।

নিজের দেওয়া আরো একটি টুইট বার্তায় ট্রাম্প বলেন, এটা খুবই চমৎকার যে, সৌদি সফরে দেশটির রাজা ও অর্ধশত দেশের নেতাদের সঙ্গে তার সাক্ষাতের ফল এরই মধ্যে আসতে শুরু করেছে। তারা বলেছে, উগ্রবাদী কর্মকাণ্ডে অর্থায়নের বিরুদ্ধে তারা কঠোর পদক্ষেপ নেবেন এবং সবকটি সূত্র কাতারকেই নির্দেশ করে। সম্ভবত, এটা হবে বীভৎস সন্ত্রাসবাদের বিদায়ের সূচনালগ্ন।

বিশ্লেষকদের মতে, সৌদি আরবে ট্রাম্পের সফরের মাত্র দুই সপ্তাহ পর উপসাগরীয় ও মিত্র দেশগুলোর এই সিদ্ধান্ত মধ্যপ্রাচ্যের রাজনীতিতে গুরুত্বপূর্ণ মোড়।

সফরে সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে এক বক্তৃতায় ট্রাম্প মধ্যপ্রাচ্যে অস্থিতিশীলতার জন্য ইরানকে দায়ী করে চরমপন্থীদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে মুসলিম দেশগুলোকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন। তার এই বক্তব্যে অনুপ্রাণিত হয়ে উপসাগরীয় রাষ্ট্রগুলো কাতারকে একঘরে করেছে বলে মনে করা হচ্ছে।


নিউজপেজ২৪/ এ বি