আন্তর্জাতিক

জুলাই ৩, ২০১৭, ১১:৪০ পূর্বাহ্ন

শিশুদের চুরি করে মঙ্গলগ্রহে পাঠাচ্ছে নাসা!

নিউজপেজ ডেস্ক

শিশুদের পৃথিবী থেকে চুরি করে মঙ্গলগ্রহে পাঠানো হচ্ছে? মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসা কি গোপনে মঙ্গলগ্রহে কলোনি তৈরি করছে? আপাতত এই প্রশ্নের উত্তর খুঁজে পেতে উত্তাল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। সেখানকার জনপ্রিয় এক রেডিও শো'য়ে রবার্ট ডেভিড নামে এক অতিথি শিল্পী এই তত্ত্ব দাঁড় করে শোরগোল ফেলে দিয়েছেন।

অ্যালেক্স জোনস শো'য়ে গত বৃহস্পতিবার রবার্ট দাবি করেন, মঙ্গলগ্রহে এখন শিশুদের ভিড়। পৃথিবী থেকে শিশুদের অপহরণ করে মঙ্গলগ্রহে ২০ বছরের জন্য পাঠানো হয়েছে। কারণ, একবার মঙ্গলে পৌঁছে দিতে পারলে ভবিষ্যতে নাসার ক্রীতদাস হওয়া ছাড়া ওই শিশুদের কাছে অন্য কোন উপায় থাকবে না।

নাসা অবশ্য এই অভিযোগের পক্ষে বা বিপক্ষে কোন প্রতিক্রিয়া জানায়নি। তবে নাসার মঙ্গলাভিযান দলের এক মুখপাত্র গায় ওয়েবস্টার ‘ডেইলি বিস্ট’কে স্পষ্ট জানিয়েছেন, মঙ্গলে শুধুই রোভার্স বা যান পাঠানো হয়েছে। কোন মানুষ মঙ্গলগ্রহে পাঠানো হয়নি। অপহৃত শিশুদের মঙ্গলে পাঠিয়ে ক্রীতদাস বানানোর অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন তিনি।

সত্যি বা মিথ্যা যাই হোক না কেন, এই অভিযোগে আপাতত উত্তাল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। জোনস, যিনি এই চাঞ্চল্যকর অভিযোগ তুলেছেন, তার রেডিও শো'য়ে এরকম একাধিক চাঞ্চল্যকর আগেও এনেছেন। তার জনপ্রিয় এই শো ১১৮টি রেডিও স্টেশনে সম্প্রচারিত হয়। লাখ লাখ মানুষ তার অনুষ্ঠান শোনেন। শুধু রেডিও নয়, ইউটিউব ও ফেসবুক-টুইটারেও তার কয়েক লাখ ভক্ত রয়েছে। তার ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইবারের সংখ্যা ২ লাখেরও বেশি।

এর আগেও জোনস একাধিক চাঞ্চল্যকর অভিযোগ তুলেছেন মার্কিন প্রশাসনের বিরুদ্ধে। যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য, ২০০১-এ মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী হিলারি ক্লিন্টনের বিরুদ্ধে পিজ্জাগেট কেলেঙ্কারির অভিযোগ। জোনস সেই সময় অভিযোগ তোলেন, ওয়াশিংটন ডিসির পিজ্জারিয়ায় একটি গোপন বেসমেন্টে শিশুদের যৌনদাস করে রেখেছেন হিলারি ও তার অনুগামীরা। ২০১২-র ডিসেম্বরে নিউটাউনের একটি স্কুলে ২০ জন শিশু ও ছয়জন পূর্ণবয়স্ক ব্যক্তিকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ তুলেছিলেন জোনস। যদিও তার সেই অভিযোগের কোন সত্যতা মেলেনি।

এবার সেই জোনসের শো'য়ে সম্ভবত সবচেয়ে চাঞ্চল্যকর অভিযোগটি তুলে দিলেন রবার্ট। তার দাবি, আমেরিকা থেকে সম্প্রতি যত শিশু চুরি-অপহৃত হয়েছে, তাদের মধ্যে অনেককেই মঙ্গলগ্রহে পাঠানো হচ্ছে। সেখানে যৌনদাস করে রাখা হতে পারে তাদের। তাদের উপর নানারকম অমানুষিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করা হচ্ছে বলেও দাবি করেছেন তিনি।

তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পৃথিবী থেকে প্রায় ৩৩.৯ মিলিয়ন মাইল দূরে মঙ্গলগ্রহের জলবায়ু মানুষের বেঁচে থাকার পক্ষে প্রতিকূল। বেশিরভাগ সময় সেখানকার তাপমাত্রা হিমাঙ্কের প্রায় ৮১ ডিগ্রি নিচে থাকে। মঙ্গলের বায়ুমণ্ডলে কার্বন ডাই অক্সাইডের পরিমাণ এত বেশি যে কোন স্বাভাবিক মানুষের পক্ষে শ্বাস-প্রশ্বাসের পক্ষে তা একেবারেই অনুপযুক্ত। এখন নাসা এই অভিযোগের কী উত্তর দেয়, সেদিকেই তাকিয়ে রয়েছেন আমেরিকার সাধারণ নাগরিকরা।

সূত্র: সংবাদ প্রতিদিন।


নিউজপেজ২৪/ এ বি