আন্তর্জাতিক

জুলাই ৩, ২০১৭, ১১:৪৮ পূর্বাহ্ন

আরও ৪৮ ঘণ্টা সময় পেল কাতার

নিউজপেজ ডেস্ক

কুয়েতের অনুরোধে কাতারকে শর্ত পূরণে আরও ৪৮ ঘণ্টা সময় দিয়েছে সৌদি আরব। স্থানীয় সময় আজ সোমবার সংবাদমাধ্যম আলজাজিরা সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা এসপিএর বরাত দিয়ে এ তথ্য জানায়।
কুয়েতের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা কেইউএনএ জানায়, অবরোধ তুলে নেওয়ার জন্য সৌদি আরবের নেতৃত্বাধীন কয়েকটি প্রতিবেশী দেশের দেওয়া ১৩টি শর্ত বিবেচনায় নেওয়ার ব্যাপারটি কুয়েতকে জানিয়েছে কাতার।

খবরে বলা হয়, কুয়েতের আমির শেখ সাবা আল আহমেদ আল জাবের আল সাবা সৌদিসহ বাকি তিনটি দেশকে কাতার অবরোধ তুলে নেওয়ার আলটিমেটামের সময় আরো ৪৮ ঘণ্টা বাড়ানোর জন্য অনুরোধ করেছেন। কাতার সংকট নিরসনে মধ্যস্থতা করছে কুয়েত।

সৌদি আরব, সংযুক্ত আরব আমিরাত, বাহরাইন ও মিসর গত ৫ জুন কাতারের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক ছিন্ন করে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে। এতে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ কাতার সংকটের মধ্যে পড়ে। অবরোধের দুই সপ্তাহ পর চারটি দেশ কাতারকে ১৩টি শর্ত দিয়ে তা পূরণের জন্য ১০ দিনের আলটিমেটাম দেয়। এর মধ্যে টেলিভিশন চ্যানেল আলজাজিরা বন্ধ, ইরানের সঙ্গে সম্পর্ক শিথিল করা, কাতার থেকে তুরস্কের ঘাঁটি সরিয়ে নেওয়ার মতো ব্যাপারও রয়েছে।

আলটিমেটামের মেয়াদ শেষ হয় গতকাল রোববার। এ বিষয়ে কাতার কী ভাবছে, সে সম্পর্কে সুস্পষ্ট কোনো তথ্য না পাওয়া যায়নি। তবে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবদুল রহমান আল-থানি জানিয়েছিলেন, কাতার কোনো শর্তে আলোচনায় যাবে না।

গত শনিবার ইতালি সফরকালে কাতারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন, ‘প্রত্যেকে এ বিষয়ে সতর্ক যে তাদের শর্তগুলো কাতারের সার্বভৌমত্বের সঙ্গে সাংঘর্ষিক। এটা কাতারের বাকস্বাধীনতার পথ রুদ্ধ করবে। ব্যাহত করবে কাতারের স্বাভাবিক কার্যক্রম।’

আবদুল রহমান আল-থানি আরো বলেন, ‘আমরা বিশ্বাস করি, পৃথিবী আলটিমেটামে চলে না, চলে আন্তর্জাতিক আইনে। আর এ আইন বড় রাষ্ট্রকে ইচ্ছামতো ছোট রাষ্ট্রের ওপর কর্তৃত্ব খাটানোর বিষয়কে সমর্থন করে না।’
অবরোধ আরোপকারী চার দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীরা আগামী বুধবার মিসরের রাজধানী কায়রোতে আলোচনায় বসবে। আর সেখানেই তাঁরা আলোচনা করে এ বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবেন বলে জানিয়েছে মিসরের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এর আগে সংযুক্ত আরব আমিরাতের রাশিয়ার অ্যাম্বাসাডর ওমর ঘোবাশ জানিয়েছিলেন, কাতার শর্ত পূরণ না করলে নতুন করে নিষেধাজ্ঞার মধ্যে পড়বে।


নিউজপেজ২৪/ এ বি