আন্তর্জাতিক

জুলাই ১২, ২০১৭, ১১:৩৬ পূর্বাহ্ন

যুক্তরাজ্যে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ‘সমকামী মুসলিম’ যুবকের বিয়ে

নিউজপেজ ডেস্ক

যুক্তরাজ্যের ‘প্রথম মুসলিম’ হিসেবে সমকামী বিয়ে করেছেন জাহেদ চৌধুরী নামে এক বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত যুবক। যুক্তরাজ্যের পশ্চিম মিডল্যান্ডের ওয়ালসাল শহরে জাহেদ চৌধুরী ও সিন রোগান বিয়ে করেন। মুসলিম সঙ্গীর অংশগ্রহণে এটিই যুক্তরাজ্যের প্রথম সমকামী বিয়ে বলে দাবি করা হচ্ছে। খবর দ্য ইন্ডিপেনডেন্ট ও টেলিগ্রাফের।

খবরে বলা হয়, ওয়ালসাল শহরের বিবাহ রেজিস্ট্রি অফিসে পাঞ্জাবী-পাজামা পরে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন জাহেদ ও রোগান। তাদের বিয়ের ভিডিও প্রকাশ করা হয়েছে অনলাইনে।

বিয়ের পর ২৪ বছর বয়সী জাহেদ মিডিয়াকে বলেন, পরিবারের কাছ থেকে সহায়তা পেতেন না তিনি। তাছাড়া স্কুলে লাঞ্ছনার শিকার হতেন জাহেদ। এমনকি স্থানীয় মসজিদে তার প্রবেশাধিকার নিষিদ্ধ করা হয় বলেও জানান তিনি।

পরবর্তীতে জাহেদ নিজের লিঙ্গ পরিবর্তনের চেষ্টা করেন। তার যৌনগত আচরণ পরিবর্তনের জন্য গার্লফ্রেন্ডের ব্যবস্থা করা হয়, পরিবার তাকে হজ্ব পালনে সৌদি আরবে নিয়ে যান। বাংলাদেশে এনেও ধর্মীয় নিয়ম-কানুন পালনে সচেষ্ট করা হয় তাকে। এক পর্যায়ে তিনি আত্মহত্যার চেষ্টা করেন।

সে সময় রোগানের সঙ্গে দেখা হয় তার। রোগানকে দেখে জীবনের মানে খুঁজে পান তিনি। তারা ২০১৫ সাল থেকে একসঙ্গে থাকা শুরু করেন। পরে গত বছর রোগানের জন্মদিনে তাকে বিয়ের প্রস্তাব দেন জাহেদ।

জাহেদ বলেন, আমার পরিবার মনে করে সমকামীতা একটা রোগ এবং এটি আরোগ্যযোগ্য। তাদের মধ্যে কেউ কেউ আবার এটিকে জীবনের একটি ধাপ বলে বিবেচনা করেন। যারা এ ধরণের ধারণা পোষণ করেন তাদের সবাইকে আমি বলতে চাই, ঠিক আছে। আমরা পুরো বিশ্বকে দেখিয়ে দিতে চাই যে আপনি মুসলিম এবং সমকামী দুটিই হতে পারেন।

জাহেদের স্বামী ১৯ বছর বয়সী রোগান বলেন, প্রত্যেকটা পদক্ষেপে সঙ্গীর পাশে দাঁড়াবেন তিনি। তিনি বলেন, সমকামী হওয়া ভুল কিছু নয়। এটা কোন ধাপ নয়। মানুষের শুধু কিছুটা সমর্থন দরকার।

যুক্তরাজ্যে মুসলিম সমকামী বিয়ের কথা শোনা যায় নি, এটিই দেশটির প্রথম মুসলিম সমকামী বিবাহ। ইংল্যান্ডে গীর্জা, মসজিদ এবং অন্তত ৫০০টি সংস্থার প্রতিনিধিত্বকারী মুসলিম কাউন্সিল অব ব্রিটেন ২০১৩ সালে ইংল্যান্ড এবং ওয়েলসে সমকামী বিবাহ বৈধতার বিষয়ে প্রতিবাদ করে। তবে স্কটল্যান্ডে সমকামী বিবাহ বৈধ ঘোষণা করা হয়েছে।


নিউজপেজ২৪/ এ বি